1. tanvirinternational2727@gmail.com : NewsDesk :
  2. hrbangladeshbulletin@gmail.com : News Room : News Room
  3. 25.sanowar@gmail.com : Sanowar Hossain : Sanowar Hossain
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন

মগবাজার ওয়্যারলেস রেলগেটের ত্রাস খালেক বাহিনীর কাছে জিম্মি শত পরিবার।

  • সময় : মঙ্গলবার, ৭ মার্চ, ২০২৩
  • ১৪২

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

মগবাজার ওয়্যারলেস রেলগেট এর ত্রাস খালেক, ইউনিট যুবলীগের সভাপতি হাইব্রিড আওয়ামীলীগ ২০০৮ এর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর যোগদান করে এবং নিজস্ব বাহিনী তৈরি করে যাদের মাধ্যমে ওয়্যারলেস রেলগেট এ রেলের জায়গা দখল করে ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করে।

এই খালেক বাহিনীর মধ্যে আরও আছে সহযোগী নুরা, মুজিব, কামাল জহুর ইসলাম সহ আরও অনেকে।এরা সবাই খালেক গং নামে পরিচিত।এই খালেক গংদের মিনিমাম ৫০০এর মতো ঘর আছে রেলের জায়গায় দখল করে বানানো।

আছে রিকশার গেরেজ আছে গরুর খামার।খালেকের রেলের জায়াগায় তিন তলা বাড়িও আছে।এইসব ঘর প্রতি মাসিক ২৫০০/৩০০০ টাকা করে নিয়ে ভাড়া দিচ্ছে।আবার কিছু ঘর এককালীন ৩৫০০০/৪০০০০ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছে।এই খালেক গং প্রতি ঘর থেকে বিদুৎ বাবদ প্রতি লাইটের, প্রতি ফ্যানের এবং প্রতি ফ্রিজের জন্য কারও কারও থেকে ৩০০/৫০০/৯০০ করে টাকা নেয় চোরাই বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে।খালেক গংদের অত্যাচারে দূর্দীনের পুরানো আওয়ামী লীগের কর্মীরা অসহায় অবস্থায় আছে, কেউ কেউ মামলা হামলায় জর্জরিত হয়ে এলাকা ছেড়ে চলে গেছে আর যারা আছেন তারা এই খালেকের ভয়ে মুখ খুলতে ভয় পায়।

যারা মুখ খুলবে তাদের কে বিদ্যুৎ পানি বন্ধ করে দেয়া হয়।এই খালেক অবৈধ টাকা দিয়ে সাভারে ৫ তালা ফাউন্ডেশনের তিন তালা পর্যন্ত বাড়ি কমপ্লিট করেছে।তার মধ্যে এই বস্তিতে এহন কোন অপরাধ নাই যে না হয় ,জুয়া, মাদক ব্যবসা, ছিনতাই সহ সব কিছুই হয় বস্তির সাথে রেললাইনের মধ্যে।

খালেকের একছেলে ছাত্রলীগ এর সাথে জড়িত আরেক ছেলে এখন সরকার বিরোধী সকল আন্দোলনে মিছিল মিটিং করে যাচ্ছে যুবদলের সক্রিয় নেতা হিসেবে।

খালেক গং এর নুরার ও আছে ঘর এবং রেলের জায়গায় দখল করা গরুর খামার এবং রিকশার গ্যারেজ।এরা সুযোগ সন্ধানী গোষ্ঠী, এরা যখন যে দল ক্ষমতায় থাকে তখন সে দলে ভর করে টাকা দিয়ে নেতাদের ম্যানেজ করে ফেলে সব জায়গায়।

যার কারনে নিরীহ আওয়ামী লীগের কর্মীরা কোনঠাসা হয়ে পড়েছে।দলের ভোট নষ্ট হোক আর যাই হোক তাদের অবৈধ কর্মকাণ্ড থেমে নাই।এই খালেক গং ৩৬ নং ওয়ার্ডের যুবলীগের সভাপতি আবুল কাসেমের লোক হিসেবে সুপরিচিত এবং এলাকায় গুঞ্জন আছে খালেকের সকল অবৈধ উৎসের টাকার একটা বড় ভাগ এই সভাপতি কাসেমের কাছে যায়।যার কারনে কাসেম এলাকার সব ধরনের ঝামেলা নিজে হস্তক্ষেপ করে সমাধান করে দেয়।খালেক গং এর বাইরেই যারা কথা বলে তাদের কে বিভিন্ন ভাবে ভুল তথ্য দিয়ে মামলা খেতে হয়।

এদের অত্যাচার নির্যাতন এর হাত থেকে সকলে মুক্তি চায়। নাম প্রকাশ না করে সকলেই এদের জিম্মি দশা থেকে মুক্তি হতে চায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
©বাংলাদেশবুলেটিন২৪