1. tanvirinternational2727@gmail.com : NewsDesk :
বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

আমাদের ঝিনাইদহ জেলা

  • সময় : শুক্রবার, ৪ মার্চ, ২০২২
  • ৫৩

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের খুলনা বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল ঝিনাইদহ। এটি খুলনা বিভাগের একটি অংশ । উত্তরে কুষ্টিয়া জেলা , দক্ষিণে ভারতের যশোর জেলা ও পশ্চিমবঙ্গ, পূর্বে রাজবাড়ী জেলা ও মাগুরা জেলা এবং পশ্চিমে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ। এই জেলার বৃহত্তম শহর ও সদর হল ঝিনাইদহ ।

ব্রিটিশ শাসনের শুরুতেঝিনাইদহ একটি পুলিশ ফাঁড়ি ছিল এবং 1793 সালে থানায় রূপান্তরিত হয় । নবগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত  জনবহুল স্থান ঝিনাইদহ। ঝিনাইদহের মোট আয়তন ৩২.৪২ বর্গ কিমি এবং জনসংখ্যা ২৫২,৫০০। দেশের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ শহরের সাথে সড়ক ও রেলপথে যুক্ত ঝিনাইদহ। কুষ্টিয়া যশোর এবং খুলনা  জেলার পর  চতুর্থ বৃহত্তম শহর ঝিনাইদহ। যশোর জেলার একটি মহকুমা হচ্ছে ঝিনাইদহ।  ১৮৬২ সালে একটি মহকুমা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয় ঝিনাইদাহ জেলা এবং ১৯৮৪ সালে একটি পৃথক জেলায় পরিণত হয়।


মুক্তিযুদ্ধের সময়  ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর ঝিনাইদহ জেলা স্বাধীনতা লাভ করে। এই জেলার নামকরণ সম্পর্কে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। কথিত আছে যে ক্যালসিয়াম উৎপাদনের জন্য “নবগঙ্গা” এবং “দহ” নদী থেকে ঝিনুক সংগ্রহের জন্য এলাকাটি বিখ্যাত হয়ে ওঠে। ঝিনাইদহ জেলার নাম “ঝিনুকা (ঝিনুক)” এবং “দহ (শ্মশানে মৃতদেহ পোড়ানো)” শব্দ থেকে এসেছে বলে মনে করা হয়।                                                                                
ইতিহাসপ্রাচীনকালে,  ঝিনাইদহের উত্তর-পশ্চিমে নবগঙ্গা নদীর তীরে ঝিনুক তোলার শ্রমিকরা বসতি স্থাপন করেছিল বলে জানা যায়। সে সময় ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা থেকে ব্যবসায়ীরা এখানে ঝিনুক মুক্তা কিনতে আসতেন। সেই সময় যেখানে ঝিনুক পাওয়া যেত তাকে বলা হত ঝিনুক ক্যাচারি।

মানুষ ঝিনুক থেকে মুক্তা সংগ্রহ করে, ঝিনুক জ্বালিয়ে চুন তৈরি করে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করত। সেই অর্থে ঝিনুক বলতে বোঝাত ঝিনুক পুকুর বা ঝিনুক গ্রাম। আর এই ঝিনুকা ও দহ থেকে ঝিনুকদহ বা ঝিনাইদহ যা রূপান্তরিত হয়েছে আজকের ঝিনাইদহে। অন্যান্য কিংবদন্তি অনুসারে, এক ইংরেজ ভদ্রলোক এই এলাকা দিয়ে নৌকায় করে নবগঙ্গা নদী পার হচ্ছিলেন।অনেকেই তখন নদী থেকে ঝিনুক সংগ্রহে ব্যস্ত। এরপর উপস্থিত লোকজনের কাছে এলাকার নাম জানতে চাইলেন, লোকেরা তাকে বুঝতে পারে না এবং মনে করে যে তারা নদী থেকে যে জিনিসটি তুলেছে তার নাম তারা জানতে চায়। এ কথা ভেবে মানুষ তাকে ঝিনুক বলে ডাকে। ইংরেজরা জায়গাটার নাম দিয়েছিল ঝিনি। ঝিনি শব্দটি পরে ঝিনাইদা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। এখনো আঞ্চলিক ভাষায় ঝিনেদা বলা হয় ঝিনাইদাহ কে।


নাম যাই হোক না কেন, ঝিনাইদহ নামের উৎপত্তি এ অঞ্চলের মানুষের কাছে বেশি গ্রহণযোগ্য।  লালন শাহের জন্মস্থান, কেপি বসু, গোলাম মোস্তফার স্মৃতি বিজড়িত; বিপ্লবী বীর বাঘায়তীনের বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান; খেজুর গুড়, কলা-পানীয় প্রাচুর্য; পাগলকানাই, কপোতাক্ষ, বেগবতী, চিত্রা, নবগঞ্জের ঝিনুকদহ এক কথায় ঝিনাইদাহের নাম। প্রশাসনজেলা প্রশাসক: সরোজ কুমার নাথ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানঃ কনক কান্তি দাস উপবিভাগ:এই জেলার অধীনে ছয়টি উপজেলা রয়েছে:১.ঝিনাইদহ সদর উপজেলা২.মহেশপুর উপজেলা৩.কালীগঞ্জ উপজেলা৪.কোটচাঁদপুর উপজেলা৫.শৈলকুপা উপজেলা৬.হরিণাকুন্ড উপজেলাশৈলকুপা: শৈলকুপা  ঝিনাইদহ জেলার একটি উপজেলা । শৈলকুপার কুমার নদীতে এক সময় প্রচুর পরিমাণ মাছ ছিল এবং তা সাধারণ কাটার মাধ্যমে ধরা হত।

তাই একে শৈলকুপা বলা হয়। অন্যদের মতে, পাহাড়ের সংখ্যা বেশি হওয়ায় এলাকাটিকে শৈলকুপা বলা হয়। শৈলকুপা পূর্বে ফরিদপুর জেলায় ছিল। মহেশপুর: মহেশপুর উপ-জেলার আদিনাম যোগীদহ ভৈরবের তীরে অবস্থিত। পরবর্তীতে ১১০৭খ্রিস্টাব্দে হিন্দু দেবতা মহেশপুর ঠাকুরের মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয় এবং নাম পরিবর্তন করে মহেশপুর রাখা হয়। কেউ কেউ বলেন, রাজা মহেশ চন্দ্রের নামানুসারে এলাকার নামকরণ করা হয়েছিল মহেশপুর। আরেকটি কিংবদন্তি হল, ওই অঞ্চলের রাজ্য এক জেলে রাজার দখলে নিলে তার ছেলের নামানুসারে মহেশপুরের নামকরণ করা হয় ‘মহেশ’। ভারতের বনগাঁ মহকুমার একটি অংশ ছিল মহেশপুর। ১৯৪৭ সালে, ঝিনাইদহ মহকুমার অংশ হয় মহেশপুর। মহেশপুরকে বলা হয় খাদ্য ভান্ডার বা রত্ন ভান্ডার।


কালীগঞ্জ: কালীগঞ্জ উপ-জেলার নামকরণের পেছনে জনশ্রুতি রয়েছে যে, এই বাজারের বিখ্যাত কালী মন্দিরের নামানুসারে কালীগঞ্জ নামকরণ করা হয়েছে।
কোটচাঁদপুর: চাঁদফকির নামে এক দরবেশ এই বনাঞ্চলে একটি মাজার তৈরি করেছিলেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে। এর নাম চাঁদপুর। ১৬১০ সালে মুঘল আমলে একটি আদালত নির্মিত হয়েছিল। আর চাঁদপুরের নামের আগে কোট শব্দটি বসিয়ে এর নাম হয় কোটচাঁদপুর। ব্রিটিশ শাসনামলে এখানে একটি আদালত ছিল এবং ১৮৬২ সাল পর্যন্ত এটি একটি মহকুমা বাণিজ্যিক শহর হিসাবে পরিচিত ছিল। হরিণাকুন্ডু: অভয়কুন্ড নামে একজন ইংরেজ কর্মচারীর অত্যাচারী পুত্র হরিচরণকুন্ডুর নামানুসারে এটি “হরিণাকুন্ডু” নামে পরিচিত।ঝিনাইদহ জেলায় ১টি পৌর শহর ঝিনাইদহ ও ৫টি শহর রয়েছে। সব পৌরসভা দ্বারা শাসিত হয়।


শিক্ষা:শিক্ষার হার এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগড় সাক্ষরতা ৪৪.৭% পুরুষ ৪৮.৮% মহিলা ৪০.৩%। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: বিশ্ববিদ্যালয় ১টি, কলেজ ৫৪টি,পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ১টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩০৪টি, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৮০৪টি, মাদ্রাসা ২৪৩টি।উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি কেসি কলেজ (১৯৬০), ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ (১৯৬৩), মাহতাব উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ ( ১৯৬৬), শৈলকুপা সরকারি ডিগ্রি কলেজ (১৯৬৯), ঝিনাইদহ সিটি কলেজ (১৯৮১), মহেশপুর উচ্চ বিদ্যালয় (১৮৬৩), হরিণাকুণ্ড প্রিয়নাথ উচ্চ বিদ্যালয় (১৮৭২), জোড়াদহ উচ্চ বিদ্যালয় (১৮৭২), ঝিনাইদহ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় (১৮৭৭), নলডাঙ্গা ভূষণ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৮৮২), শৈলকুপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় (১৮৯৩), কোটচাঁদপুর পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৮৯৯), রায়গ্রাম বাণীকান্ত উচ্চ বিদ্যালয় (১৯২০), ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৭০), ঝিনাইদহ সিদ্দিকিয়া আলিম মাদ্রাসা (১৯৬৭)।


ঝিনাইদা জেলায় উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিবর্গ:আবদুল হাই : তিঁনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ের একজন সংসদ সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা এবং কমান্ডারবাঘা যতীন:  ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে একজন ভারতীয় বাঙালি বিপ্লবী এর নাম বাঘাযতীনবীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান: জাতীয় বীর বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন সিপাহী।ইলা মিত্র: ইলা মিত্র একজন কর্মী, ভারতীয় উপমহাদেশের কৃষক আন্দোলন সংগঠক, ১৯৬২ থেকে ১৯৭৮ সালের মধ্যে চারবার বিধানসভার সদস্য নির্বাচিত হন ।ফকির লালন শাহ: একজন বিশিষ্ট বাঙালি দার্শনিক, বাউল সাধক এবং সমাজ সংস্কারক হচ্ছেন ফকির লালন শাহ।গোলাম মোস্তফা (কবি):বাঙালি লেখক ও কবি।পাগলা কানাই – একজন বাঙালি মরমী লোকশিল্পী , বাউল ও দার্শনিক ছিলেন তিনি।জামাল নজরুল ইসলাম: গাণিতিক পদার্থবিজ্ঞানী এবং সৃষ্টিতত্ত্ববিদ।আবদুর রহমান: ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ ফোরাম মিসরের স্পিকার, বিশ্বে বাংলাদেশের প্রতিনিধি।জিল্লুর রহমান: তিনি একাধারে শিক্ষাবিদ ,এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য।ডঃ আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-হাদিস ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক এবং একজন আন্তর্জাতিক ইসলামী বক্তা। 


প্রত্নতাত্ত্বিক ঐতিহ্য: বিশ্ববাত, বেথুলী, হরিহর গড়, শৈলকুপা জামে মসজিদ, শৈলকুপা। রাম গোপাল মন্দির,(শৈলকুপা)।খারের দিঘী মসজিদ, (কালীগঞ্জ)। জাহাজঘাটা, সওদাঘর দীঘি ও মসজিদ, গড়াই মসজিদ,  জোড় বাংলা মসজিদ, গলাকাটা দীঘি ও মসজিদ, চেরাগদানী দীঘি ও মসজিদ, শ্রীরাম রাজার দীঘি গাজী, কালু ও চম্পাবতীর সমাধি, ঢোল সমুদ্র দীঘি, নলডাঙ্গা রাজবাড়ী ও মন্দির, মনসা মন্দির, কৃষ্ণ বলরাম দেব বিগ্রহ মন্দির, নীলকুঠি, মধুপুর, মিয়ার দালান,  নংগোলা মসজিদ, মোনাহার মসজিদ, পীরপুকুর মসজিদ, সুকুর মল্লিক মসজিদ, সাতগাছিয়া মসজিদ, পাগলা কানাইয়ের সমাধি, ধননোহরিয়া পূর্বপাড়া জামে মসজিদ। ঝিনাইদহে শীর্ষ কিছু পর্যটক আকর্ষণ কেন্দ্র:1.গোলাকাটা মসজিদ:  ঐতিহাসিক গোলকাটা মসজিদ ঝিনাইদহ জেলা সদর থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে বারোবাজার ইউনিয়নে অবস্থিত। মসজিদটি কালীগঞ্জে খনন করা ১৯ টি সুলতানী আমলের মসজিদের মধ্যে একটি। ১৯৯০ এর দশকে, বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ মাটির উঁচু ঢিবি খনন করে গলাকাটা মসজিদের অবশিষ্টাংশ উদ্ধার ও সংস্কার করে। মসজিদটি ১৬ শতকে খান জাহান আলীর শাসনামলে নির্মিত হয়েছিল বলে মনে করা হয় ।

বর্তমানে এই মসজিদটি গলা কাটা দীঘি ঢিবি মসজিদ নামেও পরিচিত  । ৬টি গম্বুজ আকৃতির মসজিদের দেয়াল ২৫ফুট উঁচু এবং ৫ ফুট চওড়া। ৪টি ষষ্ঠ কোণার স্তম্ভের উপর স্থাপিত বর্গাকার আকৃতির মসজিদে একটি খিলান সহ ৩টি পোড়ামাটির প্রবেশদ্বার। আর মসজিদের অভ্যন্তরে পোড়ামাটির দ্বারা সুশোভিত ৩টি অর্ধবৃত্তাকার সুসজ্জিত মিহরাব এবং ৮ ফুট উচ্চতার দুটি পাথরের মিনার রয়েছে।মসজিদের পাশে প্রায় ১২ বিঘা জায়গা জুড়ে রয়েছে গোলকাটা দীঘি।  কথিত আছে, বারোবাজারের এক অত্যাচারী রাজা তার প্রজাদের গলা কেটে এই দীঘিতে ফেলে দিতেন।  তাই দীঘিটি গলাকাটা দীঘি বা গোলকাটা দীঘি নামে পরিচিত। মসজিদটিতে ১৫ শতকের নিদর্শন, একটি হাতে লেখা কোরআন শরীফ এবং খননের সময় পাওয়া একটি তলোয়ার রয়েছে।বাংলাদেশ প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ সুলতানী যুগের এই ঐতিহাসিক মসজিদটিকে সংরক্ষণ করে এবং এর পরিবেশে দূর-দূরান্ত থেকে পর্যটকদের আকৃষ্ট করে। গোলকাটা মসজিদের কাছে রয়েছে জোড়বাংলা জামে মসজিদ, গোরার মসজিদ, এবং পীর পুকুর জামে মসজিদ, সহ আরও বেশ কিছু ঐতিহাসিক মসজিদ।2. কেপি বসুর বাড়ি: বিশ্ববিখ্যাত গণিতবিদ কেপি বসুর বাড়ি ঝিনাইদহ জেলা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে  হরিশঙ্করপুরে নবগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত । ১৯০৭ সালে, কেপি বসু হরিশঙ্করপুরে একটি ১৭ কক্ষ বিশিষ্ট  দ্বিতল ভবন নির্মাণ করেন। বাড়িটি বর্তমানে অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে, তবে একসময়ের দর্শনীয় বাড়িটি দেখতে অনেক দর্শনার্থী আসেন। বিখ্যাত গণিতজ্ঞের স্মরণে ঝিনাইদহ জেলায় একটি সড়কও নির্মাণ করা হয়েছে।কেপি বসুর পরিচয়-কেপি বসু, কালীপদ বসু, ১৮৬৫ সালে ঝিনাইদহ সদরের হরিশংকরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মহিমা চরণ বসু হরিশঙ্করপুরের রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মচারী ছিলেন।

শৈশব থেকেই গণিতের মতো জটিল বিষয়ে কেপি বসুর পণ্ডিত দেখা যায়। গ্রামে স্কুলের পড়াশোনা শেষ করে তিনি লর্ড রিপন কলেজে যোগ দেন এবং সেখান থেকে গণিতে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন।  পরে ১৮৯২ সালে ঢাকা কলেজে গণিতের শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন।  ১৯২৪ সালে ক্ষতিকারক ম্যালেরিয়া জ্বরে মারা যান।  কে পি বসুকে আধুনিক বীজগণিতের প্রথম উদ্ভাবক বলা হয়। বীজগণিত এবং জ্যামিতিতে বিভিন্ন অধ্যয়ন করেছিলেন এবং গণিতের উন্নতি ও দক্ষতার জন্য অসংখ্য বই লিখেছেন। কলকাতায় কেপি বসু পাবলিশিং কোম্পানিও প্রতিষ্ঠা করেন।৩. শৈলকুপা শাহী মসজিদ:  শৈলকুপা শাহী মসজিদ ঝিনাইদহ জেলার কুমার নদীর উত্তর তীরে দরগাপাড়ায় অবস্থিত। বাংলাদেশের মধ্যযুগীয় পুরাকীর্তিগুলির একটি ।

ভারতে মুঘল শাসন প্রতিষ্ঠার আগে নাসির শাহ, ওরফে নসরত শাহ, সুলতান আলাউদ্দিন হোসেন শাহ ১৫২৩-২৪ সালের মধ্যে মসজিদটি নির্মাণ করেছিলেন। ঐতিহাসিকদের মতে, ১৫১৯ সালে সুলতান আলাউদ্দিন হোসেন শাহের মৃত্যুর পর নাসির উদ্দিন নুসরত শাহ রাজকীয় কাজে গৌড় থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে কয়েকদিন শৈলকুপায় অবস্থান করেন। সে সময় তার সফরসঙ্গী হিসেবে দরবেশ আরব শাহ ছিলেন। দরবেশ আরব শাহ শৈলকুপায় থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করলে সুলতান তার  থাকার ব্যবস্থা করেন। এছাড়াও তিনি মসজিদের সংস্কার, সংরক্ষণ ও মসজিদ পরিচালনার জন্য শত শত বিঘা জমি মসজিদের নামে দেন। ফলস্বরূপ, পরবর্তী সংস্কারের সময় মসজিদের প্রধান প্রবেশদ্বার এবং মিনারগুলি যুক্ত করা হয়েছিল।

মধ্যযুগের অপূর্ব স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত শৈলকুপা শাহী মসজিদের পুরো অংশে ছোট ছোট লাল ইট ব্যবহার করা হয়েছে। মসজিদের উত্তর-দক্ষিণ দৈর্ঘ্য ৩১.৫ফুট এবং প্রস্থ ২১ ফুট এবং দেয়ালগুলি ৫.৫ ফুট চওড়া। ছয় গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদটিতে 4টি গোলাকার মিনার, পাঁচ ফুট উচ্চতার দুটি স্তম্ভ, সাতটি প্রবেশপথ এবং ৩টি মিহরাব রয়েছে। মসজিদটির উত্তর দিকে একটি পুকুর এবং পূর্ব দিকে ৩০-৪৫ ফুট উঁচু একটি মাজার রয়েছে। স্থানীয়দের মতে,  এটি পীর শাহ মোহাম্মদ আরিফ-ই-রব্বানী ওরফে আরব শাহের মাজার । পীরের মাজারের কাছে আরও ছয়টি আউলিয়ার মাজার রয়েছে। প্রায় ৫০০ বছরের পুরনো শৈলকুপা শাহী মসজিদটি প্রাচীন ঐতিহ্য এবং মধ্যযুগীয় মুসলিম স্থাপত্যের একটি উজ্জ্বল নিদর্শন। মসজিদের মূল কাঠামো বিভিন্ন সময়ে সংস্কার করা হলেও  সুলতানি আমলের ঐতিহ্য এখনো স্পষ্ট ।

সুলতানী স্থাপত্যের এই আকর্ষণীয় শাহী মসজিদে প্রতিদিন অসংখ্য দর্শনার্থী আসেন।4.জোড় বাংলা মসজিদ: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার কালোবাজারে একটি চমৎকার গম্বুজ বিশিষ্ট জোর বাংলা মসজিদ অবস্থিত। মসজিদের খোদাই ও স্থাপত্যকে মুসলিম সভ্যতা ও শ্রেষ্ঠত্বের অন্যতম নিদর্শন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আলাউদ্দিন হোসেন শাহের পুত্র শাহ সুলতান মাহমুদ ৮০০ হিজরিতে জোর বাংলা মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন। বহু বছর আগে একজোড়া কুঁড়েঘর বা জোড়া দীঘির নামকরণ করা হয়েছিল। বর্গাকার মসজিদটি প্রায় ১১ ফুট উঁচু একটি ছোট পাতলা ইটের কাঠামোর উপর নির্মিত। মসজিদের পূর্ব দিকে তিনটি খিলানযুক্ত প্রবেশদ্বার, চার কোণে চারটি আট কোণ বিশিষ্ট খোদাই এবং পশ্চিম দেয়ালে অর্ধবৃত্তাকার পোড়ামাটির নকশা করা রয়েছে। মসজিদের কেন্দ্রীয় গম্বুজ এবং পশ্চিম দেয়ালে ফুল-পাতা খোদাই করা বেশ আকর্ষণীয়। উত্তরে সুলতান মাহমুদ শাহের আমলে জোড়বাংলা মসজিদের কাছে কয়েকটি কবর এবং আন্ধপুকুর নামক একটি দিঘী খনন করা হয়েছিল।

মুসলমানদের ওজু ও পানীয় জলের চাহিদা মেটাতে এ পুকুর খনন করা হয়। নির্মাণের কয়েক বছর পর জোড় বাংলা মসজিদটি জঙ্গলে ঢাকা ছিল। মসজিদটি ১৯৯২-৯৩ সালে বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ কর্তৃক খননকালে আবিষ্কৃত হয়। বর্তমানে মসজিদের বেশ কিছু অংশ সংস্কার  হয়েছে। স্থানীয় মুসল্লিরা নিয়মিত এই মসজিদে নামাজ পড়েন।


5.শৈলকুপা জমিদার বাড়ি:  ঐতিহাসিক এ জমিদার বাড়ি ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার আবাইপুর গ্রামে অবস্থিত। দ্বাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি অবিভক্ত ভারতের যশোর জেলার জমিদার রামসুন্দর সিকদার প্রায় ৪০০ বিঘা জমির ওপর শৈলকুপা জমিদার বাড়ি প্রতিষ্ঠা করেন।  দোতলা ভবনের চারপাশে ঘোরা ভবন সহ প্রায় ৩৫০টি কক্ষ ছিল । পরে, রামচন্দ্র এখানে একটি রেজিস্ট্রার অফিস সহ একটি বৃহৎ বাজার এবং নাটক মঞ্চের হল প্রতিষ্ঠা  করে,যা সিকদার স্ট্রিট নামে পরিচিত হয় । জমিদার রামসুন্দরের উত্তরসূরিদের তত্ত্বাবধানে গ্রামোফোন, পাথরের হুকা, তলোয়ার, প্রাচীন শ্রীমদ্ভাগবতম, বাদ্যযন্ত্র এসরাজ, দুটি শাল কাঠের মন্দির এবং রৌপ্য নকশা করা বেনারসি শাড়ির অংশসহ বেশ কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংরক্ষিত আছে।  শিকদারের সময়ের সাথে সাথে ধ্বংস হয়ে গেলেও, প্রাচীন বাড়িটি জমিদারি প্রথার ঐতিহাসিক সাক্ষী হিসেবে টিকে আছে।

 
6.মল্লিকপুরের বটগাছ:  ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বেথুলী গ্রামের মল্লিকপুরে ৫২টি বিভিন্ন আকারের বটগাছ  প্রায় ১১ একর জায়গাজুড়ে বিস্তৃত।বটগাছের আনুমানিক উচ্চতা ২৫০থেকে ৩০০ফুট। মল্লিকপুরের বটগাছটি ১৯৮৪ সালে বিবিসির জরিপে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছ   হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে  । সুইতলা বটগাছ, সুইটলা মল্লিকপুরের বটগাছ, বেথুলীর বটগাছসহ বিভিন্ন নাম রয়েছে বটগাছের। বটগাছের বয়স সম্পর্কে স্থানীয়দের কাছে সঠিক কোনো তথ্য নেই। ধারণা করা হয় প্রায় তিনশত বছর আগে বেথুলি গ্রাম কুমার সম্প্রদায়ের বসবাসের জন্য বিখ্যাত ছিল।  তখন কুমার সম্প্রদায়ের মধ্যে পটকুয়ার ব্যবহার প্রচলিত ছিল। সেন বংশী কুমার পরিবারের একটি পাটকুয়াতে একটি বটগাছ জন্মেছিল।

যা থেকে আজকের বর্তমান বটগাছ রূপান্তরিত হয়। বটগাছের সৌন্দর্য, নিরিবিলি পরিবেশ, পাখির কলরব তৃপ্ত করে দর্শনার্থীদের। মল্লিকপুরে ২০০৯ সাল থেকে সামাজিক বন বিভাগ এই বটগাছটির রক্ষণাবেক্ষণ করে আসছে।7.ঢোল সমুদ্র দীঘি:  ঢোল সমুদ্র দীঘি ঝিনাইদা জেলার পাগল কানাই ইউনিয়নে রাজা মুকুট রায়ের একটি ঐতিহ্যবাহী মহাকীর্তি। শহর থেকে মাত্র ৪কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত, ঝিনাইদহের বৃহত্তম এবং শতবর্ষী দীঘিটি  প্রায় ৫২ বিঘা জমি জুড়ে অবস্থিত। দিঘীর পাড়ে সারি সারি গাছপালা সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ। ঝিনাইদহ শহরের মানুষ ছুটির দিনে ঢোল সমুদ্র দীঘির পাড়ে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে পছন্দ করেন। কথিত আছে, ঝিনাইদহে পরাক্রমশালী  রাজা মুকুট রায়ের  আমলে প্রজাদের মধ্যে পানির প্রচণ্ড সংকট দেখা দেয়। রাজার নির্দেশে গভীর ও প্রশস্ত পুকুরটি দিনরাত খনন করা হলেও পুকুরে পানি আসেনা।

এক রাতে হতাশ রাজা স্বপ্নে দেখলেন যে, রাণী পুকুরে নেমে প্রার্থনা করলে পুকুরটি পানিতে ভরে যাবে।  রাজার স্বপ্নের কথা শুনে রানী প্রজাদের স্বার্থে পুকুরে নেমে পূজা করতে রাজি হলেন। ঢোল, সানাই, বাঁশি বাজিয়ে রাণীর পূজা করার জন্য পুকুর পাড়ে মানুষ জড়ো হয়।  রাণী পুজোর জন্য পুকুরের নীচে নামা মাত্রই পুকুরের নিচ থেকে জল উঠতে থাকে। কিন্তু রাণী পুকুরের নিচ থেকে উঠতে চাইলে পানির গতি বেড়ে যায়। এদিকে জল ওঠার আনন্দে আর প্রজাদের ঢাক, বাঁশি, সানাই ধ্বনিতে পুকুরে কেউ খেয়াল করেনি।  পরবর্তীকালে, আকারে বড় হয়ে এই দিঘিটি স্থানীয়দের কাছে রানীর স্মৃতিতে “ঢোল সমুদ্র দীঘি” নামে পরিচিত হয়।8.নলডাঙ্গা রাজবাড়ী রিসোর্ট: নলডাঙ্গা রাজবাড়ী রিসোর্ট ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার নলডাঙ্গা গ্রামে অবস্থিত। মোগল সম্রাট আকবরের আমলে নলডাঙ্গা গ্রাম মহম্মদ শাহী পরগণার রাজধানী হিসেবে সুপরিচিত ছিল।  নলডাঙ্গা প্রাসাদের শেষ রাজা ছিলেন প্রমথ ভূষণ রায় বাহাদুর। খোদাই করা প্রাসাদ আর না থাকলেও নলডাঙ্গা প্রাসাদের সাতটি মন্দির কালের সাক্ষী হয়ে আছে। তৈলকুপ গ্রামের রাজা পাতা মিয়া নলডাঙ্গা রাজবাড়ি ও রাজার স্মরণে তার বাড়িতে ২০ একর জমিতে নলডাঙ্গা প্রাসাদের অনুকরণে একটি বিনোদন পার্ক ও একটি প্রাচীন স্থাপত্য গবেষণা কেন্দ্র নির্মাণ করেন। রিসোর্টের চারপাশে বিশাল আকারের এবং ফুলের গাছের সাথে আপনি শিশু পার্ক, ওয়ান্ডার হুইল, সুপার চেয়ার, ক্যাবল ট্রেন, ভূতের ঘর, লাভ কর্নার, নৌকা, প্যাডেল বোট, খেলার মাঠ, কৃত্রিম ফোয়ারা, কফি হাউস এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখা যায়।

এ ছাড়া এখানে পিকনিক, শিক্ষা সফর, পার্টিসহ যেকোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।৯. মিয়ার দালান:  মিয়ার দালান  ঝিনাইদহ জেলা সদর থেকে মাত্র ৩ কিমি দূরে মুরারিদহ গ্রামে অবস্থিত একটি ঐতিহ্যবাহী স্থান।১২৩৬ সালে জমিদার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্মিত মিয়ার ভবনটি  ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় সেলিম চৌধুরীর কাছে বিক্রি করা হয় । তাই  স্থানীয়ভাবে  অনেকের  কাছে এটি সেলিম চৌধুরীর বাড়ি নামেও পরিচিত । এখানে একটি খুব বড় তালগাছ ছিল। এবং এই তাল গাছে ১২ টিরও বেশি কাণ্ড, যার প্রতিটি থেকে রস বের করা যেত। মিয়ার ভবন থেকে নবগঙ্গা নদীর তলদেশে একটি সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়েছিল, যার প্রবেশপথ আজও দেখা যায়। এছাড়া আরো ঐতিহ্যবাহী প্রত্নতত্ত্ব নিদর্শন অবস্থিত ঝিনাইদা জেলায়।
আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৭%, অকৃষি শ্রমিক ২.৯৩%, শিল্প ১.৫৯%, বাণিজ্য ১৪.২৪%, পরিবহন ও যোগাযোগ ৩.৮৩%, সেবা ৪.৯৩%, নির্মাণ ১.১৬%, ধর্মীয় সেবা ০.১৩%, ভাড়া ও রেমিট্যান্স ০.৪৬% এবং অন্যান্য। %। পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী দৈনিক: ঝিনাইদহ, ঝিনাইদহ বাণী, আধিবেশন, নবগঙ্গা, বীরদর্পণ, মুক্তসমাজ, নবচিত্র; সাপ্তাহিক: চলন্তিকা, অনির্বাণ, সিমন্তর বাণী, চেতনা, জনতার ডাক, বীর দর্পণ; সাময়িকী: কোটচাঁদপুর, কাহন, কুমার, দুহসহোস, জনরব, অগ্নিশিখা, প্রতিতি, দিশা, বৈপত্র, মাটি সোম, শুকতারা, ছড়াপত্র, খেজুরতলা, সবুজপত্র, জয়বাংলা, উল্লাস, চেতনা, সিমন্ত, দিশেরী, অনুরাগ, বিশ্ববাণী।

আজমিন আক্তার মিমমা

ইংরেজী দ্বিতীয় বর্ষ,

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
©বাংলাদেশবুলেটিন২৪